ঢাকা   ২১শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । ৭ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃ ভাষা দিবস ২০২৪ পালিত হলো, বাংলাদেশ উপ-কমিশনার প্রাঙ্গন , কলকাতা

প্রতিবেদকের নাম
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ফেব্রুয়ারি ২২, ২০২৪
  • 55 শেয়ার

 

কলকাতা রিপোর্টার: সমরেশ রায়, 

আজ ২১শে ফেব্রুয়ারী বুধবার, সারা ভারতবর্ষে যখন মাতৃভাষা দিবস পালিত হচ্ছে, ‌সেই সময় সকাল থেকে শুরু হয়েছে বাংলাদেশ উপ কমিশনার প্রাঙ্গন কলকাতায়, উপ হাইকমিশনার আন্দালিব ইলিয়াস মহাশয় এর উদ্যোগে, সকাল থেকে প্রভাত ফেরির মধ্য দিয়ে এবং জাতীয় পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে আজকের এই শহীদ দিবস ও মাতৃ ভাষা দিবস পালিত হয়,

সকাল ৭:১৫ পার্ক সার্কাস বাংলাদেশ গ্রন্থাগার ও তথ্য কেন্দ্রের সামনে বেশ কিছু সদস্য ও যাহারা বাংলাদেশকে ভালবাসেন তারাও উপস্থিত হন, এবং সকাল ৭.৩০মি নাগাদ একটি প্রভাতফেরি শুরু হয়, সেভেন পয়েন্ট ক্রসিং হয়ে এ জে সি বোস রোড ধরে বাংলাদেশ উপহার কমিশনার প্রাঙ্গনে উপস্থিত হন এবং শহীদ বেদীতে একে একে পুষ্পস্তবক দিয়ে শ্রদ্ধা জানান,

বাংলাদেশের তরফ থেকে কলকাতায় যে সকল উপ দূতাবাস রয়েছে, তাহাদেরকে আমন্ত্রিত জানান ,তাদের ভাষার মধ্য দিয়ে নাচ, গান ,কবিতা , নাটক , নৃত্যের আয়োজন করেন, বিকেল সাড়ে পাঁচটায়,
শুধু বাংলা ভাষাকে নয় বিভিন্ন দেশের ভাষাকে সম্মান জানানোর জন্যই আজকের এই সান্ধ্যকালীন অনুষ্ঠান,

এই সান্ধ্যকালীন অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ফরাসী উপদূতা বাসের ছাএ ছাত্রীরা তারা তাদের ভাষায় কবিতা করেন,
রাশিয়ান ভাষার ছেলে মেয়েরা কবিতা ও গান করেন,থাইল্যান্ডে ছেলে মেয়েরা গান করেন, নেপালী ভাষার ছেলে মেয়েরা নৃত্য পরিবেশন করেন, জাপানী ভাষার ছেলে মেয়েরা একটি নাটক উপস্থাপন করেন এছাড়াও বাংলাদেশের সকল ছাত্র-ছাত্রীরা বাংলা ভাষাকে সম্মান জানানোর জন্য বিভিন্ন রকম অনুষ্ঠান করেন।
সকল ভাষার অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে দর্শকদের মন আন্দোলিত করে, একটা আলাদা পরিবেশ তৈরি হয়েছে এই প্রাঙ্গণ ,বঙ্গবন্ধু মঞ্চ,

বাংলাদেশ ও কলকাতার উপ হাই কমিশনার আন্দালিব ইলিয়াস সাহেব সকলকে শহীদ দিবস ও আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের শুভেচ্ছা জানান সকল জাতি ও সকল ভাষাকে,
তিনি বলেন বাংলা ভাষা আমাদের গর্ব, শুধু বাংলা ভাষাকেই সম্মান দিলে হবেনা, সকল ভাষাকে সম্মান দিতে হবে, আজ বাংলা ভাষা দিবস হলেও, আমি মনে করি অন্যান্য দেশের ভাষাকেও সম্মান দেওয়া উচিত, বহু ভাষা বিলুপ্ত হয়ে গিয়েছে, আর জাতে বিলুপ্ত না হয়,তাই আজকে এই বিভিন্ন দেশের সমন্বয়ে সান্ধ্যকালীন অনুষ্ঠানের আয়োজন, সাথে সাথে এপার বাংলা ওপার বাংলা আরো দীর্ঘস্থায়ী হোক, সকলে মিলে আরো নতুন কিছু করি ,এই বার্তাই রইল আমার তরফ থেকে। এবং আজকে যে সকল অতিথিরা মঞ্চের চতুর্দিক আলোকিত করে রেখেছিলেন তাহাদের সকলকে আমার তরফ থেকে কৃতজ্ঞতা জানাই।।

 

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২৪