ঢাকা   ২৫শে জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । ১১ই আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
পঞ্চগড়ে জাতীয় ফলমেলা উদ্বোধন রাজারহাটে বাল্য বিবাহ ও শিশুদের প্রতি সহিংসতা বন্ধে স্থানীয়দের সাথে সংলাপ অনুষ্ঠিত ধনবাড়ীতে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্ট অনু‌ষ্ঠিত নওগাঁর ছিলিমপুর ও রসুলবিল এলাকায় দুইটি রাসেল ভাইপার সাপ মারলেন স্থানীয়রা নরসিংদীর আকাশে বার বার চক্কর দেয় উড়োজাহাজ অতঃপর রাসেলস ভাইপার নিয়ে বনবিভাগের বিশেষ পরামর্শ বৃষ্টির দিনে প্রচন্ড তাপদাহ রোদ আর গরমে বয়স্কদের আড্ডা নওগাঁ মোটর সাইকেল ও মাইক্রো বাসের মুখোমুখি সংঘর্ষে এক সেনা সদস্যর মৃত্যু পাবনা ঈশ্বরদীর থানা পুলিশের অভিযানে চাঞ্চল্যকর কিশোর তপু হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন সহ আটক – ০২ এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের বিদায় অনুষ্ঠান: আত্মশুদ্ধির মাধ্যমে সমাজ পরিবর্তন সম্ভব – আবুল কালাম আজাদ

বাংলা আমার মায়ের ভাষা

প্রতিবেদকের নাম
  • প্রকাশিত : বুধবার, ফেব্রুয়ারি ২১, ২০২৪
  • 105 শেয়ার

ঢাকা প্রতিনিধি: মনিরুজ্জামান, 
আজ অমর একুশে ফেব্রুয়ারি। বাঙালির ইতিহাসে একই সঙ্গে শোক আর গৌরবের দিন। ভাষা শহীদদের শ্রদ্ধা জানাতে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে ভিড় করছে সাধারণ মানুষ ও বিভিন্ন সংগঠন।
বুধবার (২১ ফেব্রুয়ারি) রাত ১২টা ১ মিনিটে প্রথমে রাষ্ট্রপতি ও পরে প্রধানমন্ত্রী শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
পরে মন্ত্রিসভার সদস্য ও দলের জ্যেষ্ঠ নেতাদের সঙ্গে নিয়ে আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ হাসিনা দলের পক্ষ থেকে শহীদ মিনারে আরেকটি পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
এরপর কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন জাতীয় সংসদের স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী ও ডেপুটি স্পিকার শামসুল হক টুকু।
শোক ও গৌরবের একুশে আজ
তাদের পর প্রধান বিচারপতি ওবায়দুল হাসানের নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ও আপিল বিভাগের বিচারপতিরা শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন৷পরে তিন বাহিনীর প্রধানেরা, পুলিশের মহাপরিদর্শক, বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রদূত ও হাইকমিশনার, বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থার প্রধান, র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব), বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধারা শহীদ মিনারে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
পরে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সংগঠনের পক্ষ থেকে ভাষা শহীদদের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে শুরু করে।
রাত থেকেই কালো ব্যানারে ছেয়ে যায় শহীদ মিনারের আশপাশের এলাকা।
ভোরের আলো ফুটতেই ব্যানার নিয়ে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের পথে আসতে দেখা যায় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের।
এ ছাড়াও অনেকে আসছেন পরিবার ও ছোট শিশুদের নিয়ে। অনেকের হাতে প্ল্যাকার্ড, মুখে ও হাতে লেখে রেখেছেন একুশের বিভিন্ন স্লোগান। যেখানে লেখা রয়েছে- ‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি’, ‘বাংলা ভাষা অমর হোক’, ‘বাংলা আমার মায়ের ভাষা’

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২৪