ঢাকা   ১৩ই জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ । ৩০শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম :
আসন্ন ঈদ উপলক্ষে ময়মনসিংহ শিল্প পুলিশ শিল্পাঞ্চলে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় বদ্ধপরিকর বিজিবির উত্তর-পশ্চিম রিজিয়ন আন্তঃব্যাটালিয়ন কারাতে প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত নাগরপুরে অনুষ্ঠিত হলো বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা ফুটবল টুর্নামেন্ট’২৪ বড়ইতলা নদীর উপর ব্রিজ নির্মাণের দাবিতে মানববন্ধন চাঁপাইনবাবগঞ্জে পাট চাষি সমাবেশ-২০২৪ পবিত্র ঈদুল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়েছেন দেশ প্রিয় পত্রিকার চট্টগ্রাম বিভাগীয় ব্যুরো প্রধান পাবনায় শিশু পরিবারের শিক্ষার মানোন্নয়ন ও সুস্বাস্থ্য নিশ্চিতে করণীয় শীর্ষক কর্মশালা অনুষ্ঠিত এস এস সি পরীক্ষার্থী জিপিএ ৫ প্রাপ্তদের মধ্যে পনেরো হাজার টাকা বিতরণ মাদারীপুর জেলা শিবচরে খামারে আগুন, ১৩ গরু, সাড়ে ৩ হাজার মুরগি পুড়ে ছাই নীলফামারীতে যুবকের ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

পৃথিবীতে সবচেয়ে উত্তম ইবাদত হচ্ছে আল্লাহ তায়া’লার দুনিয়ায় তাঁর দ্বীনকে প্রতিষ্ঠা করা- এটিএম মা’ছুম

প্রতিবেদকের নাম
  • প্রকাশিত : শনিবার, মার্চ ৯, ২০২৪
  • 50 শেয়ার

স্টাফ রিপোর্টার: রেজাউল করিম,

বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা এটিএম মা’ছুম বলেন, “আল্লাহ তায়া’লা মানুষকে আশরাফুল মাখলুকাত হিসেবে সৃষ্টি করেছেন। এজন্য তিনি মানুষের কাছ থেকে দ্বীনে হকের জন্য খেদমত করিয়ে নিতে চান। আল্লাহ তায়া’লা মানুষকে ইবাদতের জন্য এই পৃথিবীতে পাঠিয়েছেন যেন আমরা দুনিয়ায় ইবাদত সফলভাবে করব এবং পরকালের পুরস্কার পাবো। আর এই পৃথিবীতে সবচেয়ে উত্তম ইবাদত হচ্ছে আল্লাহ তায়া’লার দুনিয়ায় তাঁর দ্বীনকে প্রতিষ্ঠা করা।”

৮ মার্চ জুমা’বার বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী টাঙ্গাইল জেলা শাখার উদ্যোগে রুকন সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। জেলা আমীর আহসান হাবীব মাসুদের সভাপতিত্বে ও সেক্রেটারি হুমায়ুন কবিরের পরিচালনায় ভার্চুয়ালি রুকন সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদের সদস্য অধ্যক্ষ মুহাম্মদ ইজ্জত উল্লাহ, কেন্দ্রীয় কর্মপরিষদ সদস্য ড. খলিলুর রহমান মাদানী।

মাওলানা এটিএম মা’ছুম বলেন, “আল্লাহ তায়া’লা মানুষকে সর্বোত্তম জাতি হিসেবে সৃষ্টি করেছেন এজন্য যে, মানুষ মানুষকে সৎ কাজের আদেশ দেবে এবং অসৎ কাজ থেকে মানুষকে বিরত রাখবে। দ্বীনের কাজ মানুষকে পরিপূর্ণভাবে করতে হবে। আংশিক করলে কাজ হবে না। অর্থাৎ পরিপূর্ণভাবে ইসলামকে মেনে চলতে হবে আর জীবনের কোন অবস্থাতেই শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করা যাবে না। জীবনের সকল ক্ষেত্রে ইসলামকে মেনে আমাদের জীবন অতিবাহিত করতে হবে। আল্লাহ তায়া’লা যখন রূহ সৃষ্টি করলেন তখন প্রত্যেক রূহ থেকে তিনি ওয়াদা গ্রহণ করেছিলেন, ‘আমি কি তোমাদের রব নই? তখন সকল রূহ বলেছিল হ্যাঁ, আপনি আমাদের রব।’ ঠিক তেমনি আমরা রূহের জগতে যখন আল্লাহর কাছে ওয়াদা করেছি সে ওয়াদার পরিপূর্ণতার জন্য পৃথিবীতে এসে আমরা রুকনিয়াতের শপথ করলাম। আর এই শপথ রক্ষার জন্য আমাদেরকে দুনিয়ার সকল কাজকে গৌণ করে শপথের আলোকে জীবনটাকে মুখ্য করে অর্থাৎ এক নাম্বারে আনতে হবে। এতেই আমরা দুনিয়া এবং আখরাতে কামিয়াব হতে পারব।”

তিনি আরো বলেন, “দুনিয়াতে মানুষকে খাওয়া-দাওয়া ফুর্তি করার জন্য পাঠানো হয়নি। একটি ঐতিহাসিক দায়িত্ব পালনের জন্য দুনিয়াতে পাঠানো হয়েছে মানুষকে। তাই এর আলোকেই আমরা শপথ নিয়েছি। যুগে যুগে পূর্বের সকল নবীগণ তাদের উম্মতদেরকে এই শপথ দিয়েছিলেন। এই কাজের পরিপূর্ণ বিধান করেন আমাদের নবী মুহাম্মদ (সা) এবং তিনিও সাহাবায়ে কেরামদেরকে এই শপথ দিয়েছিলেন। রুকনিয়াতের শপথ থেকে জামায়াতে ইসলামের কর্মীরা আলাদা হতে পারে না। শপথ হচ্ছে গায়ের চামড়ার মত। এটা কোন পোশাক নয় যে ইচ্ছা হল পড়লাম ইচ্ছে হল খুলে ফেলে দিলাম। আল্লাহ তায়া’লা আমাদেরকে শপথের আলোকে জীবন পরিচালনা করার তৌফিক দান করুন।” সহযোগিতায়: ডা.মান্নান

এ সম্পর্কিত আরো সংবাদ
© স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০২৪